জন্ম নিবন্ধন হারিয়ে গেলে করণীয় কি কিভাবে জন্ম সনদ ডাউনলোড করবেন

জন্ম নিবন্ধন হারিয়ে গেলে করণীয় কি কিভাবে জন্ম সনদ ডাউনলোড করবেন এই সম্পর্কে জানতে অনেকেই গুগল সার্চ করে থাকেন। বর্তমান সময়ে অনেকেরই জন্ম নিবন্ধন হারিয়ে গিয়েছে, আমরা এখানে বাংলাদেশের জন্ম নিবন্ধন অনলাইন কপি ডাউনলোড করার পদ্ধতি এবং সনদের জন্ম নিবন্ধন সনদ পুনঃ মুদ্রন জন্য আবেদন পদ্ধতি বিষয়ে বিস্তারিত জানাবো।

বর্তমানে বাংলাদেশ সরকারের নিয়ম অনুসারে প্রতিটি বাংলাদেশী নাগরিকের জন্ম নিবন্ধন থাকা বাধ্যতামূলক।

জন্ম নিবন্ধন হারিয়ে গেলে করণীয় কি কিভাবে জন্ম সনদ ডাউনলোড করবেন

সাম্প্রতিক সময়ে নতুন নিয়ম অনুসারে বাবা-মার জন্ম নিবন্ধন থাকলেই সন্তানের জন্ম নিবন্ধন তৈরি করা সম্ভব হবে।তাই আমাদের সকলের উচিত পরিবারের সকল সদস্যের জন্ম নিবন্ধন গুলো সঠিকভাবে সংরক্ষণ করা।

যদি কোন কারণে আপনার জন্ম নিবন্ধন হারিয়ে গিয়ে থাকে তবে জন্ম নিবন্ধন হারিয়ে গেলে করণীয় কি এই সম্পর্কে বিস্তারিত জানতে আপনি সম্পূর্ণ পোস্টটি পড়ুন।

অনলাইন জন্ম নিবন্ধন হারিয়ে গেলে করণীয় কি?

জন্ম নিবন্ধন হারিয়ে গেলে প্রথমেই আপনাকে বাংলাদেশ সরকার প্রদত্ত অফিসিয়াল ওয়েবসাইটে গিয়ে জন্ম নিবন্ধন নম্বর ও জন্ম তারিখ দিয়ে অনলাইনে জন্ম নিবন্ধন টি চেক করতে হবে।

এই ক্ষেত্রে হারিয়ে যাওয়া জন্ম নিবন্ধন অনুসন্ধান করার জন্য আপনার কাছে জন্ম নিবন্ধন নম্বর থাকা আবশ্যক।

হারিয়ে যাওয়া জন্ম নিবন্ধন অনলাইনে পুনর্মুদ্রণের জন্য আবেদন করার পর আবেদনের কপি আপনার সংশ্লিষ্ট ইউনিয়ন পরিষদ, পৌরসভা অথবা সিটি কর্পোরেশন কার্যালয়ে জমা দিতে হবে।

যদি আপনার কাছে পূর্বের জন্ম নিবন্ধন সনদের একটি ফটোকপি থাকে তবে সেটি ও সংযোজন করে অনুমোদনের জন্য আবেদন করেছেন, তা আবেদন কফির সাথে জমা দিন।

তবে আপনি জন্ম নিবন্ধন সংক্রান্ত যে কোন তথ্য জানার জন্য এই https://bdris.gov.bd/ ওয়েবসাইটটি ভিজিট করতে পারেন।

তবে হারিয়ে যাওয়া জন্ম নিবন্ধন সনদ অরজিনাল কপি পাওয়ার জন্য আপনাকে জন্ম নিবন্ধন সনদ পুনর্মুদ্রণের জন্য আবেদন করতে হবে, অন্যথায় এজন্য আপনাকে আপনার এলাকার নির্দিষ্ট অফিসে উপস্থিত হতে হবে।

কেননা এই কাজটি আপনি নিজে নিজে করতে পারবেন না।

তবে আপনার কাছে যদি জন্ম নিবন্ধনের পুরাতন কপি থেকে থাকে তাহলে আপনি অনলাইন থেকে আপনার জন্ম নিবন্ধন অনলাইন কপি ডাউনলোড করে নিতে পারেন।

কেননা বর্তমান ডিজিটাল যুগে যে কোন কাজে ব্যবহার করতে পারবেন অনলাইন জন্ম নিবন্ধনের কপি।

জন্ম নিবন্ধনের অনলাইন যাচাই কপি ব্যবহার করুন

ইতিমধ্যে আমরা আপনাকে বলেছি কেন আপনি জন্ম নিবন্ধন অনলাইন যাচাই কপি ব্যবহার করবেন।

বর্তমান ডিজিটাল যুগে কোথাও আপনাকে জন্ম নিবন্ধন এর অরজিনাল কপি প্রদর্শন করা জরুরি না।

তাই আপনার কাছে যদি জন্ম নিবন্ধন নম্বরটি থেকে থাকে আপনি সহজেই বাংলাদেশ সরকার প্রদত্ত অফিশিয়াল ওয়েবসাইটে নিবন্ধন নম্বর ব্যবহার করে জন্ম নিবন্ধন অনলাইন কপি ডাউনলোড করে নিতে পারেন।

বর্তমান ডিজিটাল যুগে সরাসরি অরজিনাল ডকুমেন্টস এর পরিবর্তে আপনার ডকুমেন্টস এর ফটোকপি প্রদান করে আপনি আপনার যাবতীয় কার্যক্রম পাদনা করতে পারবেন।

তাই যদি কোন কারণে আপনার জন্ম নিবন্ধন টি হারিয়ে যায় তবে আমাদের এই পোস্ট জন্ম নিবন্ধন হারিয়ে গেলে করণীয় কি তে দেখানো পদ্ধতি গুলো ব্যবহার করতে পারেন।

হারানো জন্ম নিবন্ধন নম্বর জানা না থাকলে যা করতে হবে

উপরে উল্লেখিত দুইটি পদ্ধতিতে আপনাকে জন্ম নিবন্ধন অনলাইন কপি বের করার প্রয়োজনীয়তা এবং কেন অনলাইন কপি ব্যবহার করবেন এই বিষয়ে সম্পূর্ণ ধারণা দেওয়া হয়েছে।

তবে আপনাদের অবগতির জন্য বলছি যদি আপনার কাছে জন্ম নিবন্ধনের পূর্বের কোন তথ্য না থাকে অর্থাৎ জন্ম নিবন্ধন ফটোকপি অনলাইন প্রতিলিপির কোন কপি না থাকে তবে আপনার ক্ষেত্রে জন্ম নিবন্ধন অনলাইন থেকে ডাউনলোড করা সম্ভব হবে না।

তাই এমত অবস্থায় আগে আপনাকে আপনার জন্ম নিবন্ধন নম্বর বের করতে হবে।

আপনার হারিয়ে যাওয়া জন্ম নিবন্ধন নম্বর জানতে আপনি আপনার নিবন্ধকের কার্যালয়ে।

অর্থাৎ যেখানে আপনি জন্ম নিবন্ধনের জন্য আবেদন করেছিলেন সেখানে যোগাযোগ করুন।

বেশিরভাগ ক্ষেত্রেই নিবন্ধন কার্যালয় হতে পারে আপনার এলাকার ইউনিয়ন পরিষদ সিটি কর্পোরেশন পৌরসভা অফিস।

আপনি যখন আপনার নির্দিষ্ট অফিসে গিয়ে আপনার নাম ও পিতার নাম দিয়ে সার্চ দিবেন তখনি আপনার জন্ম নিবন্ধনের তথ্য বের হয়ে আসবে।

এক্ষেত্রে আপনি আপনার ঘরের অন্য কোনো সদস্যের জন্ম নিবন্ধন এর ফটোকপি সঙ্গে নিয়ে যেতে পারেন।

যিনি ঠিক একই জন্ম নিবন্ধকের কার্যালয় জন্ম নিবন্ধন করেছিলেন আপনি যেখানে করেছেন, এতে আপনার হারিয়ে যাওয়া জন্ম নিবন্ধন ফি দ্রুত খুঁজে দিতে পারবে নিবন্ধন অফিসার।

হারিয়ে যাওয়া জন্ম নিবন্ধন সনদ ডাউনলোড

ইতিমধ্যেই আপনারা জেনেছেন ব্যক্তিগতভাবে হারিয়ে যাওয়া জন্ম নিবন্ধন ডাউনলোড বা হারিয়ে যাওয়া জন্ম নিবন্ধন পুনঃমুদ্রণ করার কোনো সুযোগ নেই।

এজন্য আপনাকে 2 টি পদ্ধতির যেকোনো একটি ব্যবহার করতে হবে-

  • অনলাইনে জন্ম নিবন্ধনের প্রতিলিপির জন্য বা জন্ম নিবন্ধন সনদ পুনঃ মুদ্রন আবেদন করতে হবে।
  • অথবা আপনার এলাকার নির্দিষ্ট জন্ম নিবন্ধন অফিসারের কাছে গিয়ে আপনার জন্ম নিবন্ধন ফি সার্চ করে বের করে নিতে হবে।

প্রথম পদ্ধতি অবলম্বন করে হারিয়ে যাওয়া জন্ম নিবন্ধন ফিরে পেতে আপনাকে অনলাইনে জন্ম নিবন্ধনের প্রতিলিপি বা পূনঃ মুদ্রণের জন্য আবেদন করতে হবে।

এটি খুবই সহজ একটি প্রক্রিয়া যা আপনি আপনার মোবাইল বা কম্পিউটার থেকে নিজেই করতে পারবেন।

কাজটি করতে হবে আপনাকে অফিশিয়াল ওয়েবসাইট ভিজিট করার মাধ্যমে।

জন্ম নিবন্ধন অফিশিয়াল সাইট https://bdris.gov.bd/
জন্ম নিবন্ধন সাইট লগইন পেজ https://bdris.gov.bd/login
জন্ম নিবন্ধন অফিশিয়াল সাইট লিংক

দ্বিতীয় পদ্ধতি হচ্ছে আপনি যেখান থেকে জন্ম নিবন্ধন করেছিলেন সেই অফিসে উপস্থিত হয় আপনার নাম ও জন্ম তারিখ ব্যবহার করে জন্ম নিবন্ধন কপি করে সেখান থেকে ডাউনলোড করে নেওয়া।

এই ক্ষেত্রে আপনি ব্যবহার করতে পারেন আপনার ঘরের অন্য কোনো সদস্যের জন্ম নিবন্ধনের  ফটোকপি।

তবে আপনি যেই সদস্যের জন্ম নিবন্ধন এর ফটোকপি ব্যবহার করবেন ওই সদস্যের জন্ম নিবন্ধন নিবন্ধক অফিসারের অফিস থেকে তৈরি হওয়া জরুরী।

জন্ম নিবন্ধন হারিয়ে গেলে করণীয় FAQS

জন্ম নিবন্ধন হারিয়ে গেলে কিভাবে পাব?

আপনার জন্ম নিবন্ধন হারিয়ে গেলে অনলাইনে জন্ম নিবন্ধন প্রতিলিপির জন্য বা জন্ম নিবন্ধন সনদ পুনঃ মুদ্রনের জন্য আবেদন করতে হবে। এর জন্য আপনার কাছে 17 ডিজিটের জন্ম নিবন্ধন নম্বর ও জন্ম তারিখ প্রয়োজন হবে।

অনলাইন জন্ম নিবন্ধন হারিয়ে গেলে করণীয় কি?

আপনার জন্ম নিবন্ধন যদি আপনি অনলাইন পোর্টাল থেকে করে থাকে, তবে আপনি আপনার অনলাইন জন্ম নিবন্ধন হারিয়ে গেলে অফিশিয়াল ওয়েবসাইটে জন্ম নিবন্ধন সনদ পুনঃ মুদ্রন জন্য আবেদন করুন।

উপসংহার,

আশা করি অনলাইন জন্ম নিবন্ধন হারিয়ে গেলে করণীয়  কি এই সম্পর্কে আপনি জানতে পেরেছেন।

জন্ম নিবন্ধন অত্যন্ত জরুরি একটি নথী বাংলাদেশী নাগরিকের জন্য তাই আপনি আপনার জন্ম নিবন্ধন সম্পর্কিত যে কোন কাগজপত্র সঠিকভাবে তৈরি করে রাখবেন।

যে কোন প্রয়োজনে যেকোনো সময় সরকার আপনার জন্ম নিবন্ধন সম্পর্কিত তথ্যাদি জানতে ও চাইতে পারে।

এছাড়াও নাগরিকের বিভিন্ন কাজে জন্ম সনদ প্রদান করা জরুরি।

ইতিমধ্যে আমরা অনেকেই জানি একটি শিশুকে স্কুলে ভর্তি থেকে শুরু করে একজন ব্যক্তিকে নাগরিক হিসেবে জাতীয় পরিচয় পত্র করার ক্ষেত্রে জন্ম সনদ থাকা আবশ্যক।

টেলিকম অফার, মোবাইল ব্যাংকিং সম্পর্কে সাধারণ জ্ঞান ও ইন্টারনেট থেকে আয়ের বিভিন্ন মাধ্যম সম্পর্কে জানতে আমাদের ওয়েবসাইট ভিজিট করুন।

About jobnewspapers

Check Also

ডাক অধিদপ্তর নিয়োগ পরীক্ষার তারিখ ২০২২

ডাক অধিদপ্তর নিয়োগ পরীক্ষার তারিখ ২০২২

ডাক অধিদপ্তর নিয়োগ পরীক্ষার তারিখ ২০২২ (Bangladesh Post Office Exam Date 2022) ডাক, টেলিযোগাযোগ ও তথ্যপ্রযুক্তি …

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *